1/22/2019

মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসন ও জাতীয় ভোক্তা অধিকার সেমিনার অনুষ্ঠিত

স্টাফ রিপোটারঃ
মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসন ও জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের যৌথ উদ্যোগে ভোক্তা অধিকার আইন অধিকতর প্রচারের লক্ষ্যে ২২ জানুয়ারী সকাল ১১ টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে সকল শ্রেণীর ব্যবসায়ীসহ সরকারি বেসরকারি চাকুরীজীবী, প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সংবাদিকবৃন্দ ও সাধারণ ভোক্তার উপস্থিতিতে জেলা প্রশাসক মো: তোফায়েল ইসলাম এর সভাপতিত্বে একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।
জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, মৌলভীবাজার জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো: আল আমিন অধিদপ্তরের কার্যক্রম সর্ম্পকে এবং ভোক্তা অধিকার আইন সর্ম্পকে আলোচনা করেন।
তিনি সকলকে ভোক্তা অধিকার আইন মেনে ব্যবসা করার জন্য অনুরোধ জানান।
সেমিনারে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) মো: আশরাফুর রহমান, মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খোদেজা খাতুন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মিছবাহুর রহমান, ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো: সাইফুর রহমান বাবুল, জেলা ভোক্তা অধিকার কমিটির সদস্য বকশী ইকবাল, ডা: আব্দুল হাদী শাহীন। সেমিনারের সভাপতি সকলকে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়ার জন্য অনুরোধ জানান। সকল মানুষই ভোক্তা উল্লেখ করে অনুষ্ঠানের সভাপতি সকলকেই যার যার অবস্থান থেকে দায়িত্বশীল হয়ে কাজ করা জন্য আহবান করেন।

মৌলভীবাজার  পৌরসভার ২ কোটি ৮২ লক্ষ টাকা ব্যয়ে সড়ক বাস্তবায়ন কাজের উদ্বোধন



ইমাদ উদ দীন॥ 
মৌলভীবাজার পৌরসভার তৃতীয়নগর পরিচালনা ও অবকাঠামো উন্নতিকরণ প্রকল্প ইউজিপ এর অধীনে উন্নয়নকৃত শহরের টিভি হাসপাতাল সড়ক ও আরামবাগ রাস্তার ২ কোটি ৮২ লক্ষ ৪ হাজার টাকা ব্যয়ে নির্মান বাস্তবায়নের শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে।
মঙ্গলবার ২২ জানুয়ারি দূপুরে প্রকল্প এ দু’টি বাস্তবায়ন কাজের উদ্বোধন করেন মৌলভীবাজার ৩ আসনের নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য নেছার আহমদ।
শহরের শাকুরা মার্কেটের সামনে এ উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। মৌলভীবাজার পৌর সভার মেয়র ও জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফজলুর রহমানের সভাপতিত্বে ও পৌরসভার উপ-সহকারী প্রকৌশলী (ইলেকট্রিক) রণধীর রায়ের পরিচালনায় আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন মৌলভীবাজার-৩ (সদর ও রাজনগর) আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নেছার আহমদ।
আলোচনা সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মিছবাহুর রহমান, সহ-সভাপতি আজমল আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাডভোকেট রাধাপদ দেব সজল, আইন বিষয়ক সম্পাদক ও পিপি এ্যাডভোকেট আজাদুর রহমান আজাদ, জেলা আওয়ামীলীগ নেতা আলহাজ্ব আকিল আহমদ, শাহ মোহাম্মদ আলী সাহেদ, উপ-দপ্তর সম্পাদক নিখিল দাশ অনিক, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক মিন্টু, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি নাজমুল হক, পৌর কাউন্সিলর ফয়ছল আহমদ, আসাদ হোসেন মক্কু, নাহিদ আহমদ, ডা: হাদী হোসেন, শামসুল হক সামা, লিয়াকত আলী, হাফিজ মাওলানা আবুল হোসেন, সৈয়দ সেলিমুল হক, ছাত্রলীগ সভাপতি আমিরুল ইসলাম আমিন ও সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম প্রমুখ।
সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর পৌরসভা এলাকায় এটা প্রথম জনসভা থাকায় আলোচনা সভার শুরুতে প্রধান অতিথি নবনির্বাচিত জাতীয় সংসদ সদস্য নেছার আহমদকে বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে বরণ করা হয়। এছাড়াও পৌরসভার পক্ষ থেকেও প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিকে ক্রেস্ট তুলে দেওয়া হয়।
জিওবি ও এডিবির সহায়তাপুষ্ঠ ইউজিপ-৩ প্রকল্পের অধীনে ২ কোটি ৮২ লক্ষ ৪ হাজার টাকা ব্যয়ে পৌরসভার আওতাধীন আরামবাগ ও টিবি হাসপাতাল সড়ক, টিলাবাড়ি সড়ক, টিলাবাড়ির পাশের ড্রেন, শ্যামলী শহীদ আব্দুস শহীদ রাস্তা, অরেঞ্জ টিলার রাস্তা ও ড্রেন, সার্কিট হাউজের পূর্বের লিংক রোড উন্নয়ন ও সংস্কার কাজ শেষে উদ্বোধন করা হয়।
সভায় প্রধান অতিথি নেছার আহমদ তার বক্তব্যে বলেন দেশকে এগিয়ে নিতে দূর্ণীতি,মাদক ও সন্ত্রাস মুক্ত হতে হবে। তাই সে লক্ষ্যে সবাইকে কাজ করার আহবান জানান। তাকে নির্বাচিত করায় ভোটারদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন আমি আপনাদের সেবক হিসেবে কাজ করতে চাই। দেশের উন্নয়নে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে আপনাদেরকে দেওয়া প্রতিশ্রুতিতে আমি বদ্ধপরিকর। আপনাদের যে সময় প্রয়োজন আমার কাছে আসবেন আমাকে ডাকবেন। আমি আপনাদের পাশে থাকব। সততা,ন্যায় ও দেশ প্রেমকে সামনে রেখে দেশের কল্যাণে কাজ করতে সকলের প্রতি উদাত্ত আহবান জানান।
সভাপতির বক্তব্যে পৌর মেয়র ফজলুর রহমান বলেন আপনাদের সহযোগিতায় এই শহরকে একটি মডেল শহর করতে চাই সে জন্য আপনাদের সহযোগিতার প্রয়োজন। আপনাদের সকলের সহযোগিতায় এরকম একের পর এক উন্নয়ন দৃশ্যমান হবে ইনশাআল্লাহ।

1/21/2019

কুলাউড়ায় গ্রীলকাটা চোর চক্র তৎপর-জনমনে আতংক


স্টাফরিপোটারঃ
কুলাউড়া পৌর এলকায় কয়েকদিন থেকে গ্রীলকাটা চোর চক্রের তৎপরতা বৃদ্ধি পেয়েছে। চোরের উপদ্রবে স্থানিয় বাসা-বাড়ীর লোকজন ও ভারাটিয়াদের মধ্যে আতংক বিরাজ করছে। বিশেষ করে চোরেরা তালাবদ্ধ বাসা-বাড়ী টার্গেট করে হানা দিয়ে আসবাবপত্র তছনছ করে মূল্যবান মালামাল নিয়ে পালিয়ে যাচ্ছে। স্থানিয়দের ধারনা সঙ্গবদ্ধ এই চক্রটি অত্যাধনিক যন্ত্রপাতি ব্যাবহার করছে কারন এক বাসায় পাশাপাশি থাকার পরও চুরির ঘটনা অন্য ফ্লাটের লোকজন আঁচ করতে পারে না। সব মিলিয়ে চোরের উপদ্রবে এখন আতংকিত কুলাউড়া পৌর এলাকার লোকজন। এসব বিষয়ে দ্রুত প্রশাসনিক ব্যবস্থা জোরদার করার দাবিও জানিয়েছেন তারা।

কুলাউড়া সরকারী কলেজের উপাধ্যক্ষ ও সাপ্তাহিক হাকালুকির সম্পাদক মোঃ আব্দুল হান্নান জানান, কুলাউড়া থানা রোডের তার লন্ডন প্রবাসী ভগ্নিপতি মরহুম সোনাওর মিয়ার শোভন ভিলা তালাবদ্ধ বাসায় এক দুঃসাহসিক চুরি সংঘটিত হয়েছে। গত শনিবার বাসার দরজা খুলে ভেতরে ঢুকে সকল আলমীরা খোলা ও তছনছ অবস্থায় দেখতে পান। পরে বিষয়টি কুলাউড়া থানা পুলিশকে অবহিত করলে এসআই ইয়াছিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

গত বৃহস্পতিবার (১৭জানুয়ারী) পৌর এলাকার বাদে মনসুরস্থ সাংবাদিক মোঃ তারেক হাসান এর বাসায় একইভাবে দুঃসাহসিক চুরি সংঘটিত হয়েছে। তালাবদ্ধ বাসার জানালার গ্রীল কেটে চোরেরা ঘরে প্রবেশ করে মালামাল তছনছ করেছে। পরে খবর পেয়ে কুলাউড়া থানার এসআই দিদার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। অনুরুপ ভাবে কয়েক বছর পূর্বে একই কৌশলে চোর চক্র তার বাসায় প্রবেশ করে স্বর্ণালংকার, নগদ অর্থসহ মূল্যবান মালামাল নিয়ে পালিয়ে যায়। তখন মামলা করা হলেও কোন মালামাল উদ্ধার হয়নি এখনো।

গত বৃহস্পতিবার দক্ষিণ বাজার বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ম বিজন দেবের (তারিনি ড্রাইভার বাড়ি) ভাড়াটিয়া এক শিক্ষিকার বাসায় রাতে চুরি সংগঠিত হয়। তিনি জানান চোর চক্র জানালার লক ভেঙ্গে ঘরের ভেতর থেকে স্বর্ণালংকার, মোবাইল ফোনসহ মূল্যবান মালামাল নিয়ে যায়।

সাপ্তাহ খানেক আগে উত্তরবাজার হাসপাতালের সম্মুখে চৌধুরী ম্যানশন ৪র্থ তলায় রাতের বেলা হানা দিয়ে চোরেরা প্রবাসি নুরুজ্জামান নামে এক ভাড়াটিয়ার ঘর থেকে কৌশলে জানালা খুলে ল্যাপটপ, ট্যাবসহ মূল্যবান মালামাল নিয়ে পালিয়ে যায়।

কয়েকদিন পূর্বে  কুলাউড়া কলেজ রোডের কাছিম নগরস্থ এমদাদুর রহমান চৌধুরী জিয়ার বাড়িতে চোরেরা হানা দেয়। তিনি জানান রান্নাঘরের দরজার থালা ভেংগে ঘরের ভিতর ঢুকে আলমারী ভেংগে স্বর্ণালংকারসহ মূল্যবান মালামাল নিয়ে চোরেরা পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে কুলাউড়া থানার এসআই জহিরুল ইসলাম তালুকদার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। 

মৌলভীবাজারের বিভিন্ন স্থানে ভোক্তা অধিকার জরিমানা


মৌলভীবাজার প্রতিনিধিঃ
 মৌলভীবাজারের সদর উপজেলার টিসি মার্কেট পশ্চিমবাজারসহ বিভিন্ন স্থানে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের অভিযানে পাঁচ প্রতিষ্ঠানকে ৪ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
রবিবার (২০ জানুয়ারী) বিকাল ৩ টা থেকে ৫টায় ভোক্তা অধিকার আইনের বিভিন্ন ধারায় এ জরিমানা করা হয়।
জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর,মৌলভীবাজার জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো: আল আমিন এর নেতৃত্বে অভিযানে সহযোগিতা করেন জেলা চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ এর পরিচালক মহিম দে ও সদর মডেল থানা পুলিশ ফোর্স। অভিযানকালে টিসি মার্কেটের আলম মিয়ার মুরগির দোকানকে ২ হাজার টাকা, পশ্চিমবাজারে মাহমুদের মাছের দোকানকে ৫ শত টাকা, সুভাষ দেবের গুড়ের দোকানকে ৫ শত টাকা, সজল পালের গুড়ের দোকানকে ৫ শত টাকা, ইসরাইল মিয়ার গুড়ের দোকানকে ৫ শত টাকাসহ মোট ৪ হাজার টাকা জরিমানা আরোপ ও তা আদায় করা হয়। বাণিজ্য মন্ত্রনালয়াধীন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, মৌলভীবাজার জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো: আল আমিন, উক্ত অভিযানে ওজনে কম দেওয়া, ছোট মাছ নিচে রেখে বড় মাছ উপরে সাজিয়ে ক্রেতার সাথে প্রতারণা করে বিক্রয় করা, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে গুড় বিক্রয় করাসহ বিভিন্ন অপরাধে এসকল জরিমানা করা হয়।

কুলাউড়ায় অবৈধভাবে পাহাড় কাটায় ৫০ হাজার টাকা জরিমানা

বিশেষ প্রতিনিধিঃ
কুলাউড়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) মোঃ সাদিউর রহিম জাদিদ এর নেতৃত্বে ১৭ জানুঃ বৃহস্পতিবার এক ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে অবৈধভাবে পাহাড় ও টিলা কাটার অপরাধে ৩ জনকে আটক করে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।
জানা যায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সহকারী কমিশনার (ভুমি) মোঃ সাদিউর রহিম জাদিদ ব্রাহ্মনবাজার ইউনিয়নের পশ্চিম জালালাবাদ এলাকায় বেআইনীভাবে পাহাড় ও টিলা কাটার সংবাদ পেয়ে এক ঝটিকা অভিযান পরিচালনা করেন। অভিযানকালে ট্রাকসহ ঐ এলাকার আব্দুল বাছিত,লাল মিয়া ও শফিকুর রহমান নামে ৩ জনকে আটক করেন।
পরে ঘটনাস্থলে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে ৩ ব্যক্তিকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়। পরে দন্ডিত অপরাধীরা জরিমানার টাকা পরিশোধ করে মুক্তিলাভ করে।
অভিযানে উপজেলা ভুমি অফিসের কর্মকর্তাসহ কুলাউড়া থানা পুলিশ ফোর্স অংশ গ্রহন করে। সহকারী কমিশনার (ভুমি) মোঃ সাদিউর রহিম জাদিদ জানান সরকারি স্বার্থ রক্ষায় অভিযান অব্যাহত থাকবে।

বিজ্ঞানী ও বিজ্ঞান লেখক ড. আবেদ চৌধুরী এবার উদ্ভাবন করেছেন ‘রঙিন ভুট্টা’র জাত


স্টাফ রিপোটারঃ
 বিজ্ঞানী ও বিজ্ঞান লেখক ড. আবেদ চৌধুরী এবার উদ্ভাবন করেছেন ‘রঙিন ভুট্টা’র জাত। মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার এই কৃতী সন্তান  রবিবার এক মতবিনিময়সভায় এই তথ্য জানিয়েছেন। উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে আয়োজিত মতবিনিময়সভায় নিজের উদ্ভাবন নিয়ে সবিস্তার কথা বলেছেন এই বিজ্ঞানী। উপজেলা পরিষদের আয়োজনে এই সভায় স্থানীয় সফল কৃষক, সাংবাদিক ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
জিন বিজ্ঞানী ড. আবেদ চৌধুরী বলেন, ‘ধান ও গমের তুলনায় ভুট্টায় পুষ্টিমাণ অনেক বেশি। ভুট্টায় ক্যারোটিন থাকার কারণে মূলত এর রং হলুদ হয়। তাই আমি রঙিন ভুট্টার ক্লোন উদ্ভাবন করেছি। তাৎপর্যের বিষয় হলো, এই ভুট্টা ক্যান্সার প্রতিরোধক।’
বিজ্ঞানী ড. আবেদ চৌধুরী বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশনের (বিএডিসি) সঙ্গে বিভিন্ন ধরনের গবেষণামূলক কাজ করার অনুমতি পেয়েছেন। এই গবেষণা কার্যক্রমের অংশ হিসেবে তিনি দেশে বরাবর আবাদ হয়ে আসা ভুট্টার জিনগত পরিবর্তন ঘটিয়ে রঙিন ভুট্টার প্রজাতি উদ্ভাবন করেছেন।

এই জিন বিজ্ঞানী বলেন, ‘জেনিটিক্যালি মডিফায়েড করে এ ধরনের ভুট্টা তৈরি করা হয়। আমরা চাইলে যেকোনো ফসলকে ইচ্ছামতো রং দিতে পারি।’

ড. আবেদ চৌধুরী জানান,নব উদ্ভাবিত এই রঙিন ভুট্টা বছরে চারবার চাষ করা যায়।আবার খরিপ-১ ও খরিপ-২ মৌসুমেও ভুট্টা চাষ করা যায়।হাইব্রিড ভুট্টা একটি পদ্ধতির মাধ্যমে বেরিয়ে আসতে পারে। বেরিয়ে আসা ভুট্টার ফলন হবে হাইব্রিডের সমান। কৃষকদের এই ভুট্টা চাষে উদ্বুদ্ধ করতে তিনি কুলাউড়া উপজেলার ভুট্টা চাষিসহ সফল কৃষকদের মাঝে ভুট্টার বীজ বিতরণ করেন।

মতবিনিময় সভায় এই বিজ্ঞানী বলেন, ‘দীর্ঘদিন বিদেশে ছিলাম। বিভিন্ন দেশে সেবা দিয়েছি। এবার সেই সেবা নিজের দেশকে দিতে চাই। বিশেষ করে কুলাউড়ার কৃষি বিভাগকে এগিয়ে নিতে আমি আলাদা সময় দেব।’

দেশের কৃষি খাত নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে ড. আবেদ চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের দেশে বিজ্ঞানের কারণে কৃষির উৎপাদন বেড়েছে, জমির কারণে নয়। কিন্তু উদ্বেগের বিষয় হলো,এখানে দেদারসে জমির উপরিভাগ (পলি) ইটভাটায় নেওয়া হচ্ছে, মিল-ফ্যাক্টরি করে ধানি জমি ধ্বংস এবং নগরায়ণ করা হচ্ছে।এর ফলে আগামীতে আমাদের কৃষি বিভাগ হুমকির মুখে পড়বে। কৃষি খাত নিয়ে নতুন করে ভাবতে হবে।সেই সঙ্গে ফসলের নতুন নতুন জাত উদ্ভাবন করতে হবে।’
কুলাউড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আ স ম কামরুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও কৃষি কর্মকর্তা জগলুল হায়দারের সঞ্চালনায় মতবিনিময়সভায় আরো বক্তব্য দেন শিকাগোর অনারারি কনসাল জেনারেল মুনির চৌধুরী, যুক্তরাষ্ট্রের কমিউনিটি লিডার শামছুল ইসলাম, প্রবীণ সাংবাদিক সুশীল সেনগুপ্ত, উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আব্দুল মতলিব,কুলাউড়া ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক মইনুল ইসলাম শামীম, কুলাউড়া প্রেস ক্লাবের সভাপতি এম শাকিল রশীদ চৌধুরী, সাংবাদিক আজিজুল ইসলাম, কৃষক মোঃ আব্দুল আজিজ, শ্রেষ্ঠ চাষি আব্দুল জব্বার প্রমুখ। 
অন্যন্যাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নেহার বেগম, আওয়ামীলীগের ত্রাণ বিষয়ক সম্পাদক বাবু গৌরা দে, কুলাউড়া প্রেসক্লাব সম্পাদক মোঃ খালেদ পারভেজ বখশ,সাংবাদিক আব্দুল কুদ্দুস ও সাইদুল হাসান শিপন । 

উল্লেখ্য,
আবেদ চৌধুরী একজন জিন বিজ্ঞানী ও বিজ্ঞান লেখক। আধুনিক জীববিজ্ঞান নিয়ে গবেষণায় প্রথম সারির গবেষকদের অন্যতম একজন। পাশাপাশি কবিতাও লেখেন। ১৯৫৬ সালের ১ ফেব্রুয়ারি মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার হাজিপুর ইউনিয়নের কানিহাটি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। বর্তমানে বাংলাদেশ ও অস্ট্রেলিয়ার দ্বৈত নাগরিক। বসবাস করেন অস্ট্রেলিয়ার ক্যানবেরায়।

আবেদ চৌধুরী রসায়নশাস্ত্র নিয়ে লেখাপড়া করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। এরপর যুক্তরাষ্ট্রের অরেগন স্টেট ইনস্টিটিউট অব মলিকুলার বায়োলজি এবং ওয়াশিংটনে ফ্রেড হাচিনসন ক্যান্সার রিসার্চ ইনস্টিটিউটে। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথ, ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি এবং ফ্রান্সের ইকোল নরমাল সুপিরিয়রের মতো স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা ও গবেষণা করেছেন। বর্তমানে তিনি অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় বিজ্ঞান সংস্থায় একদল বিজ্ঞানীর সমন্বয়ে গঠিত গবেষকদলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। অনেক পেশাদারি জার্নালে তাঁর লেখা প্রবন্ধ গুরুত্বের সঙ্গে ছাপা হয়েছে। তিনি সহজবোধ্য ভাষায় বাংলা ও ইংরেজিতে অনেক নিবন্ধও লিখেছেন।

গবেষণা : ড. আবেদ চৌধুরী ১৯৮৩ সালে পিএইচডি গবেষণাকালে রেকডি নামের জেনেটিক রিকম্বিনেশনের একটি জিন আবিষ্কার করেন,যা নিয়ে আশির দশকে আমেরিকা ও ইউরোপে ব্যাপক গবেষণা হয়।বাংলাদেশের গর্ব এই বিজ্ঞানী-গবেষক অযৌন বীজ উৎপাদন (এফআইএস) সংক্রান্ত তিনটি নতুন জিন আবিষ্কার করেন, যার মাধ্যমে এই জিনবিশিষ্ট মিউটেন্ট নিষেক ছাড়াই আংশিক বীজ উৎপাদনে সক্ষম হয়। তাঁর এই আবিষ্কার অ্যাপোমিক্সিসের সূচনা করেছে, যার মাধ্যমে পিতৃবিহীন বীজ উৎপাদন সম্ভব হয়।



বাংলাদেশে হাফিজা-১, জালালিয়া, তানহা ও ডুম—এই চার জাতের ধানের উদ্ভাবকও এই বিজ্ঞানী।




একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সংরক্ষিত আসনে চমক দেখাতে পারেন শিরিন আক্তার বেলী


স্টাফ রিপোটারঃ
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সংরক্ষিত আসনে চমক দেখাতে পারেন শিরিন আক্তার বেলী।


 মৌলভীবাজার ও সুনামগঞ্জ জেলা নিয়ে গঠিত সংরক্ষিত আসন ২৯-এর প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন তিনি।
সুদীর্ঘ ২২বছরের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনে সরব সংগ্রামী নারী নেতৃত্ব, সত্যিকার অর্থে সমাজসেবী হিসেবে সর্বমহল সুপরিচিত, একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সুযোগ্য কন্যা, সৎ,
যোগ্য, সামাজের কাছে সুপরিচিত আদর্শবান নেতৃত্ব মৌলভীবাজারের মেয়ে এবং জালালাবাদ বাসীর গর্ব,




বাংলাদেশ আওয়ামী যুবমহিলা লীগের ঢাকা মহানগর উত্তরের সিনিয়র সাংগঠনিক সম্পাদক শিরিন আক্তার বেলী-কে বৃহত্তর মৌলভীবাজার ও সুনামগঞ্জবাসী তাদের এতোদিনের সুখ-দুঃখের পাশে পাওয়া এই মানুষটিকে জাতীয় পর্যায়ে তাদের এলাকার সকল সমস্যা সমাধানে কথা বলা এবং ভুমিকা রাখার জন্য বৃহত্তর মৌলভীবাজার ও সুনামগঞ্জ জেলা নিয়ে গঠিত সংরক্ষিত নারী সংসদীয় আসন-২৯-এ সংসদ সদস্য হিসেবে দেখতে ভীষণভাবে আগ্রহী।






এব্যাপারে স্থানীয় এলাকাবাসীদের কাছে উনার ব্যাপারে জানতে চাইলে এলাকাবাসীর অনেকেই জানান এলাকার মানুষের সুখ-দুঃখে এবং দুর্যোগে অগ্রগামী সেবক হিসেবে উনার সুপরিচিতির কথা।






পাশাপাশি উনাকে সংরক্ষিত নারী সংসদীয় আসন-২৯-এ সংসদ সদস্য হিসেবে কাছে পেতে তাদের ইচ্ছা কথা ব্যক্ত করেন।উক্ত আসনে প্রার্থীতার ব্যাপারে নারী নেত্রী শিরিন আক্তার বেলীর কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান,









দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেভাবে দল এবং সরকারে নারী নেতৃত্বের







প্রতি আস্থা রাখছেন, আমার বিশ্বাস সংরক্ষিত আসনের ক্ষেত্রে সে আস্থা রাখলে আমি আশাবাদি। সুযোগ পেলে আমি তৃণমূল পর্যায়ে পিছিয়ে পড়া নারীদের নিয়ে কাজ করার পাশাপাশি  আমার সর্বোচ্চ মেধা ও শ্রম দিয়ে কাজ করে যাব।
 


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে  বিশেষ করে প্রত্যন্ত অঞ্চলের দরিদ্র-অসহায়, নির্যাতিতা ও পিছিয়ে পড়া নারীদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় নিজেকে সম্পৃক্ত করতেই পার্লামেন্টে যেতে চাচ্ছেন।



1/20/2019

কুলাউড়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক শাফাত উদ্দিন আহমদের ইন্তেকাল

স্টাফ রিপোটারঃ
কুলাউড়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক,  আলহাজ¦ মো. শাফাত উদ্দিন আহমদ (৮২) ইন্তেকাল করেছেন। (ইন্নালিল্লাহি…… রাজিউন)। ১৯ জানুয়ারি শনিবার রাতে কুলাউড়া উছলাপাড়াস্থ নিজ বাসভবনে তাঁর মৃত্যু হয়। তিনি স্ত্রী, ২ ছেলে, ২ মেয়ে, নাতী নাতনীসহ অসংখ্য গুণাগ্রাহী রেখে গেছেন। রোববার ২০ জানুয়ারি বেলা ২টায় তাঁর কর্মস্থল কুলাউড়া বালিকা বিদ্যালয় মাঠে প্রথম জানাযা এবং বেলা ৩টায় গ্রামের বাড়ি জয়চন্ডী ইউনিয়নের ঘাগটিয়া ঈদগাহ মাঠে ২য় জানাযা শেষে পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করা হয়।
প্রয়াত শিক্ষক আলহাজ্ব শাফাত উদ্দিন আহমদ এর মৃত্যুতে গভীর শোক ও তাঁর শোকাহত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়ে শোক প্রকাশ করেছেন  নবনির্বাচিত এমপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ, সাবেক এমপি নওয়াব আলী আব্বাস খান,সাবেক এমপি ও

ঠিকানা গ্রুপের চেয়ারম্যান এম এম শাহীন, সাবেক এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আব্দুল মতিন, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি এডভোকেট আবেদ রাজা, কুলাউড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আসম কামরুল ইসলাম,কুলাউড়া পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব শফি আলম ইউনুছ,  উপজেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ফজলুল হক খান সাহেদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক, কাদিপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান, শাহজালাল আইডিয়াল ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ, কুলাউড়া পলি ক্লিনিকের চেয়ারম্যান ও সাপ্তাহিক কুলাউড়ার ডাক পত্রিকার সম্পাদক এ কে এম সফি আহমদ সলমান,মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি মোঃ আব্দুল কাদির, সাধারণ সম্পাদক মোঃ আব্দুল মতিন, মৌলভীবাজার জেলা কৃষকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও দি চেম্বার অব কমার্সের পরিচালক জাফর আহমদ গিলমান,   কুলাউড়া ব্যবসায়ী কল্যান সমিতির সভাপতি বদরুজ্জামান সজল, সাধারণ সম্পাদক মইনুল ইসলাম শামিম, কুলাউড়া প্রেসক্লাব সভাপতি এম শাকিল রশীদ চৌধুরী ও সাধারন সম্পাদক মোঃ খালেদ পারভেজ বখশ,সাপ্তাহিক হাকালুকি পত্রিকার সম্পাদক উপাধ্যক্ষ মোঃ আব্দুল হান্নান, কুলাউড়ার সংলাপ পত্রিকার সম্পাদক অধ্যক্ষ  সিপার উদ্দিন আহমদ প্রমুখ।

1/18/2019

কুলাউড়ায় পিকআপ ভ্যানের ধাক্কায় বৃদ্ধার মৃত্যু

মৌলভীবাজার প্রতিনিধিঃ
 মৌলভীবাজারেরকুলাউড়া উপজেলার কালিটি চা বাগানে ইট বোঝাই টাটা পিকআপ ভ্যানের ধাক্কায় লশমী রবিদার (৫০) নামে এক বৃদ্ধার মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে।
১৭ জানুয়ারী বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে নতুন লাইনের সড়কে এই দূর্ঘটনাটি ঘটে।
নিহত লশমী একই বাগানের শিপুধন রবিদারের স্ত্রী।
প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় শ্রীকান্ত দাস জানান, বাগানে কাজের উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হোন লশমী রবিদার। এসময় একটি ইটবোঝাই টাটা পিকআপ গাড়ি বাগানের দিকে আসছিলো। হঠাৎ সেই গাড়ি পিছনের দিকে আসতে গেলে লশমী গাড়ির ধাক্কায় পড়ে যায়। ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়। স্থানীয়রা সেই গাড়ি ও গাড়ির ড্রাইভারকে আটক করে রাখে।

মৌলভীবাজারে এশিয়ান টিভির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত



মৌলভীবাজার প্রতিনিধিঃ
 জনপ্রিয় স্যাটেলাইট চ্যানেল এশিয়ান টেলিভিশনের ৬বছর পেরিয়ে ৭ বছরে পদার্পন উপলক্ষে মৌলভীবাজারে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা ও নানান আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে পালিত হয়েছে।
বৃহস্পতিবার  (১৭ জানুয়ারি)  সকালে র্যালী শেষে জেলা প্রতিনিধি মোঃ মাহবুবুর রহমান রাহেল এর সভাপতিত্বে  প্রেসক্লাব মিলনায়তনে  কেক কেটে উদ্বোধন করেন 








মৌলভীবাজার রাজনগর ৩ আমনের সংসদ সদস্য নেছার আহম্মদ ও পৌরসভার মেয়র মোঃ ফজলুর রহমান।
বক্তব্য রাখেন, প্রেসক্লাবে সাবেক সভাপতি এম এ সালাম, সভাপতি আবদুল হামিদ মাহবুব।




উপস্থিত ছিলেন,এনটিভির স্টাফ করেসপনডেন্ট ও মৌলভীবাজার প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস.এম উমেদ আলীর, প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক সালেহ এলাহি কুটি, দৈনিক বাংলার দিন সম্পাদক বকসি ইকবাল আহমদ, ডাঃ ছাদিক আহমদ,









এটিএন বাংলা প্রতিনিধি সৈয়দ মহসিন পারভেজ, প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি ও বাংলাভিশন প্রতিনিধি সৈয়দ হুমায়েদ আলী শাহিন,   দৈনিক সংগ্রাম প্রতিনিধি আজাদুর রহমান,












 দৈনিক  প্রথম আলো প্রতিনিধি আকমল হোসেন নিপু, সময় সংবাদের প্রতিনিধি শাহ অলিদুর রহমান, মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের প্রতিনিধি তমাল ফেরদৌস দুলাল,বিটিভি প্রতিনিধি হাসনাত কামাল, যমুনা টেলিভিশনের আফরোজ আহমদ,


 






ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশনের আব্দুর রব, নিউজ টোয়েন্টি ফোরের সৈয়দ বয়তুল আলী, মুক্তকথার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মামুনুর রশিদ মহসীন, 

 











সাপ্তাহিক পূর্বদিক সম্পাদক  মুজাহিদ আহমেদ, মনুবার্তা সম্পাদক মোঃ জসিম উদ্দিন, বাংলাটিভিউন প্রতিনিধি সাইফুল ইসলাম,

এশিয়ান টিভি শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রতিনিধি সুমন দাস, ফটোনিউজবিডি ডটকমের সম্পাদক এমদাদুল হক,যুগান্তর প্রতিনিধি হুসাইন আহম্মদ,











দৈনিক বাংলার দিন প্রতিনিধি জাকির হোসেন, সিলেট ভিউ প্রতিনিধি ওমর ফারুক নাঈম, সাপ্তাহিক পাতাকুঁড়িরদেশ প্রতিনিধি  জনি বেগম, এনটিভির ক্যামেরা পার্সন মনজু বিজয় চৌধুরীসহজেলার স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, প্রিন্ট, অনলাইন মিডিয়া,ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

1/15/2019

মৌলভীবাজারের কে হচ্ছেন নারী সংসদ সদস্য


মৌলভীবাজার প্রতিনিধিঃ
 মৌলভীবাজার ও সুনামগঞ্জ জেলা নিয়ে সংরক্ষিত নারী আসন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পরই সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য হতে মাঠে নেমেছেন মৌলভীবাজার জেলার অন্তত হাফ ডজন নেত্রী।

কে হচ্ছেন (সুনামগঞ্জ-মৌলভীবাজার) মহিলা আসনের সংসদ সদস্য? এই নিয়ে চলছে অনেক জল্পনা কল্পনা। দলের কেন্দ্রে চলছে জোর লবিং। সামাজিত যোগাযোগ মাধ্যম ও চায়ের আড্ডায় আলোচনায় আসছেন ৬ নারী নেত্রী।

তারা হচ্ছেন- সাবেক সংসদ সদস্য ও প্রয়াত সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসীন আলীর স্ত্রী সৈয়দা সায়রা মহসীন, মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক সাংসদ বেগম হুসনে আরা ওয়াহিদ, মৌলভীবাজার জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভানেত্রী সৈয়দা জহুরা আলাউদ্দিন, পুলিশের সাবেক আইজিপি সৈয়দ বজলুল করিমের কন্যা ও জালালাবাদ এসোসিয়েশসনের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার সৈয়দা সীমা করিম ও সিলেট এমসি কলেজের সাবেক ছাত্রনেত্রী এডভোকেট জেসমিন মনসুর। এছাড়াও আওয়ামী লীগের অনেক শীর্ষ নেতারা অতীতের মত এবার নিজেদের স্ত্রী ও স্বজনকে সাংসদ বানাতে আগ্রহী।

এদের মধ্যে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সৈয়দা সায়রা মহসীন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েছিলেন। তবে দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় মনোনীত প্রার্থী নেছার আহমদের পক্ষে চালিয়েছেন প্রচারণা। বাকীরাও দলীয় প্রার্থীকে বিজয়ী করতে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছেন। এবার নিজেদের জন্য মাঠে নেমেছেন এই নারী রাজনীতিকরা। দলের হাইকমান্ডে এদের অনেকে লবিং চালাচ্ছেন বলে জানা গেছে। এখন সময় বলে দিবে মৌলভীবাজার জেলা নাকি সুনামগঞ্জ থেকে কে হচ্ছেন সংরক্ষিত মহিলা সাংসদ? দেশে বিদেশের মৌলভীবাজার জেলাবাসী অতি আগ্রহে সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় রয়েছেন।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মিছবাহুর রহমান বলেন, শুনেছি সাবেক মহিলা এমপি এবার প্রার্থী রয়েছেন। কে সংরক্ষিত আসনের এমপি হবেন একমাত্র প্রধানমন্ত্রীই জানেন। তিনি যাকে এমপি মনোনীত করবেন, তার সঙ্গে আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করব।

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় সূত্র জানায়, অতীতের কাজের মূল্যায়নের পরিপ্রেক্ষিতে মৌলভীবাজারে মহিলা সাংসদ হওয়ার প্রচুর সম্ভাবনা রয়েছে। একই সাথে দলের প্রতি আনুগত্য, দলের দূর্দিনে যারা সক্রিয় ছিলেন, তৃনমূলের সাথে যাদের সম্পর্ক ভালো তাদেরকেই প্রধানমন্ত্রী অগ্রাধিকার দিবেন বলেও মনে করছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সংরক্ষিত নারী সাংসদ (সুনামগঞ্জ-মৌলভীবাজার) নির্বাচিত হন শামসুন্নাহার বেগম শাহানা রব্বানী। তিনি সুনামগঞ্জ-৪ আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। মৌলভীবাজার-৩ আসন থেকে সাবেক সমাজকল্যানমন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলীর স্ত্রী উপ-নির্বাচনে বিজয়ী সাংসদ সায়রা মহসিন দলীয় মনোনয়ন চান।

কিন্তু তাদের কেউই আওয়ামী লীগের টিকেট পাননি। তবে সাধারণ আসনে টিকেট না পেলেও সংরক্ষিত সাংসাদ হয়েও যাতে সংসদে যাওয়া যায় সে লক্ষ্যে তারও আছেন লবিংয়ে।

জুড়ীতে এসএসসি পরীক্ষার্থীকে ধর্ষণের চেষ্টা


জুড়ী প্রতিনিধি : 
 মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলায় গোয়ালবাড়ি ইউনিয়নে ১৫ জানুয়ারি মঙ্গলবার সকালে স্কুল যাবার সময় এসএসসি পরীক্ষার্থী এক স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা করেছে হেলাল উদ্দিন (৩৫) নামক এক বখাটে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন লেমনের সহায়তায় বখাটে হেলালকে আটক করতে সক্ষম হয় পুলিশ। স্কুল ছাত্রী বর্তমানে কুলাউড়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। স্কুল ছাত্রীর পরিবারের লোকজন ও পুলিশ সুত্রে জানা যায়, প্রতিদিনের মত সকালে কচুরগুল উচ্চ বিদ্যালয়ের ২০১৯ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থী সকাল আনুমানিক সাড়ে ৯টায় স্কুলে যাচ্ছিল। কুচরগুল উচ্চ বিদ্যালয়টি পাহাড়ী জনপদে হওয়ায় ওই শিক্ষার্থী কচুরগুল গ্রামের হেলাল উদ্দিনের বাড়ির পাশ দিয়ে যাচ্ছিল। বখাটে হেলাল উদ্দিন বিবাহিত হলেও তার স্ত্রী সন্তান বাড়িতে ছিলো না। স্ত্রীর ব্লাউজ সেলাই করতে টেইলারের কাছে কাপড় দিবে বলে ওই স্কুল ছাত্রী বাড়িতে নিয়ে যায়। বাড়িতে নিয়ে কৌশলে ঘরের দরজা বন্ধ করে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। পরনের কামিজ খুলে ফেলে। এসময় ওই শিক্ষার্থী চিৎকার করে ঘরের দরজা খুলে পাশ্ববর্তী নিজাম উদ্দিনের বাড়িতে আশ্রয় নেয়।
ঘটনা শুনে স্থানীয় লোকজন বখাটে হেলাল উদ্দিনকে আটক করলেও সে কৌশলে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয় গোয়াল বাড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন লেমনের সহায়তায় পুলিশ বখাটেকে আটক করতে সক্ষম হয়।
জুড়ী থানায় অফিসার ইনচার্জ জাহাঙ্গীর আলম সরকার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, ঘটনাকারি হেলাল উদ্দিন কচুরগুল গ্রামের মঈন উদ্দিনের ছেলে। তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কুলাউড়ায় অনলাইন জার্নালিস্ট সোসাইটির নতুন কমিটি গঠন


কুলাউড়া প্রতিনিধি : 
 দিন বদলের হাওয়ায়, সাংবাদিকতা এখন অনলাইনে এই প্রত্যয়ে প্রতিষ্ঠিত ‘অনলাইন জার্নালিস্ট সোস্যাল সোসাইটি’র পূর্ণাঙ্গ নতুন কমিটি গঠন করা হয়েছে। ১১ জানুয়ারি শুক্রবার আয়োজিত এক সভায় তিন বছরের জন্য এ কমিটি গঠন করা হয়। ১৭ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির সভাপতি পূণরায় ডেইলী বিডি নিউজের সম্পাদক ফারহানা বেগম হেনা এবং সাধারণ সম্পাদক দৈনিক নতুন কাগজের মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধি ইউসুফ আহমদ ইমন কে মনোনীত করা হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন সহ-সভাপতি-১ সুমন আহমদ (সংবাদ প্রতিক্ষন.কম), সহ-সভাপতি-২ শাকিল সিদ্দিকী খালেদ (সংলাপ২৪.কম), যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নয়ন লাল দেব (অর্থকাল), সহ সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান সুজন (সাপ্তাহিক জনতার নিঃশ^াস), সাংগঠনিক সম্পাদক মো: আমিনুল ইসলাম দিদার (হলিবিডি.কম), দপ্তর সম্পাদক মো: রেদওয়ান হোসেন (দৈনিক বাংলাদেশ.কম), কোষাধ্যক্ষ মুকিম আহমদ চৌধুরী (লন্ডন সিলেট নিউজ২৪.কম), প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম জুয়েল (জিবি বার্তা.কম), তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মইনুর রহমান শাহান (ঢাকা ক্রাইম নিউজ বিডি.কম)। কার্যনির্বাহী সদস্য-১ এম এ কাইয়ুম (পূর্বপশ্চিম) ও কার্যনির্বাহী সদস্য-২ এস এ কাওছার (সময়ের সাথে২৪.কম) সদস্য মাহমুদ খাঁন (২৪টুডে নিউজ), সদস্য নাঈম আলী (আলোকিত সকাল)।
এছাড়া এই কমিটির উপদেষ্টা-১ হিসেবে থাকবেন যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদক সাংবাদিক কামাল হাসান, উপদেষ্টা সাপ্তাহিক কুলাউড়ার সংলাপ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক অধ্যক্ষ সিপার উদ্দিন আহমদ, আইন উপদেষ্টা মৌলভীবাজার জজ কোর্টের আইনজীবী এডভোকেট মো: মাহবুবুল আলম শামীম, সাংবাদিক সমিতি কুলাউড়া উপজেলা ইউনিটের সভাপতি মুক্তাদির হোসেন, মৌলভীবাজার সাংবাদিক ফোরামের সহ-সভাপতি এম. মছব্বির আলী, সাপ্তাহিক কুলাউড়ার সংলাপ পত্রিকার সহকারী বার্তা সম্পাদক মো: আব্দুল কুদ্দুস, সাপ্তাহিক অর্থকাল পত্রিকার সহকারী সম্পাদক এম. আতিকুর রহমান আখই, ২৪টুডে নিউজ.কমের সম্পাদক ও প্রকাশক প্রভাষক আফাজুর রহমান চৌধুরী ফাহাদ, কুলাউড়া অনলাইন প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সাইদুল হাসান সিপন। এদিকে নবগঠিত এ কমিটিকে অভিনন্দন জানিয়েছেন বাংলাদেশ অনলাইন প্রেসক্লাব, কুলাউড়া প্রেসক্লাব, কুলাউড়া অনলাইন প্রেসক্লাব, সিলেট অনলাইন জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন, সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাব, মৌলভীবাজার সাংবাদিক ফোরাম, কুলাউড়া সাংবাদিক সমিতিসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংবাদিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

সিলেটে ঐক্যফ্রন্ট নেতারা

ভোটের দিন বিরোধীদের হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত নেতাকর্মীদের পাশে দাঁড়ানোর অংশ হিসেবে সিলেটে পৌঁছেছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা।সোমবার (১৪ জানুয়ারি) বেলা সাড়ে ১১টায় তাদের বহনকারী বিমানটি সিলেট এমএজি ওসমানী বিমানবন্দরে এসে পৌঁছে। সেখানে স্থানীয় বিএনপিসহ ঐক্যফ্রন্ট নেতারা তাদের স্বাগত জানান।
পরে ঐক্যফ্রন্টের নেতারা হজরত শাহজালাল (রহ.) এর মাজার জিয়ারতে যান। এরপর হজরত শাহপরান (রহ.) মাজার জিয়ারত করবেন তারা।মাজার জিয়ারত শেষে ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতারা দুপুরে সিলেটের বালাগঞ্জে নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক সায়েম আহমদ সোহেলের বাড়িতে যাবেন। বিকেলে তাদের ঢাকায় ফেরার কথা রয়েছে।সফরকারী দলে রয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, কৃষক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, গণফোরামের কার্যকরী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু, জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব ও নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না প্রমুখ।

পরিবেশ ও বন মন্ত্রী শাহাব উদ্দিনের কাছে এলাকাবাসীর নানা প্রত্যাশা


আব্দুর রব, বড়লেখা থেকে ::
পুর্ণমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেয়ার পর  বুধবার নিজ নির্বাচনী এলাকা বড়লেখায় প্রথমবারের মত পা রাখছেন গণ-প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পরিবশে, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী শাহাব উদ্দিন এমপি। তাকে মন্ত্রী হিসেবে পাওয়াকে বড়লেখার জন্য এক ঐতিহাসিক সাফল্য হিসেবে মনে করছেন এলাকাবাসী। এজন্য মন্ত্রী শাহাব উদ্দিন এমপির ওপর এলাকাবাসীর প্রত্যাশাও অনেক।
বড়লেখা পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল ইমাম মো. কামরান চৌধুরী বলেন, বারবার জনগণের ভোটে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি আলহাজ শাহাব উদ্দিন এমপিকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের গুরুত্বপুর্ণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী করেছেন এটা বড়লেখাবাসীর জন্য নিঃসন্দেহে গর্বের বিষয়। এজন্য জননেত্রী শেখ হাসিাকে বড়লেখাবাসীর পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। জাতীয় সংসদের হুইপ হিসেবে বিগত ৫ বছর আলহাজ শাহাব উদ্দিন এমপি বড়লেখা ও জুড়ী এলাকার ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। এখন তিনি পূর্ণমন্ত্রী হওয়ায় স্বাভাবিক কারণে তার ওপর জনসাধারণের প্রত্যাশা বহুগুন বেড়ে গেছে। মেয়র কামরান মনে করেন দেশের সর্ববৃহৎ হাকালুকি হাওরকে অনতিবিলম্বে হাওর উন্নয়ন পরিকল্পনার অর্ন্তভুক্তকরণ, হাওর ও পাথারিয়া পাহাড়ের জীববৈচিত্র ও পরিবেশ রক্ষার উদ্যোগ, বড়লেখা পৌরসভার আধুনিক প্রশাসনিক ভবন নির্মাণের ব্যবস্থাগ্রহণ, মাধবকু- ইকোপার্কের আধুনিকায়নসহ উপজেলা ও পৌরসভার প্রধান প্রধান সমস্যা চিহ্নিত করে সঠিক পরিকল্পনা নিয়ে তা দ্রুত বাস্তবায়নে নিনি অসীম ভুমিকা পালন করবেন।
এদিকে বড়লেখা প্রশাসন, উপজেলা আ’লীগসহ সর্বস্থরের জনসাধারণ বড়লেখার প্রথম পুর্ণমন্ত্রী আলহাজ শাহাব উদ্দিন এমপিকে বরণ করে নিতে ব্যাপক প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। তার সম্মানে দুই উপজেলার প্রধান সড়কে নির্মাণ করা হয়েছে শতাধিক তোরণ, ব্যানার ও ফেস্টুন। বড়লেখার উত্তর-পশ্চিম সীমান্তের চান্দগ্রাম বাজার থেকে উপজেলা আ’লীগ, সহযোগী সংগঠন ও সর্বস্থরের জনসাধারণ বিরাট শোডাউনের মাধ্যমে তাদের প্রিয় নেতাকে বড়লেখায় নিয়ে যাবে। বিকেলে দেয়া হবে বিশাল গণসংবর্ধনা।

1/13/2019

সাংবাদিক রফিক আহমদ প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী

স্টাফ রিপোটারঃ
  প্রবীণ সাংবাদিক জনাব রফিক আহমদ-এর আজ ১৩ জানুয়ারী প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী। ব্রেণ টিউমারসহ বিভিন্ন রোগে ভোগে ২০১৮ সালের এদিন রাত ৮.১৫ঘটিকায় ভবানীপুরস্থ নিজ বাড়ীতে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। রফিক আহমদ জীবদ্দশায় কুলাউড়া প্রেস ক্লাবের সহ-সভাপতি, জুড়ী উপজেলা প্রেস ক্লাবের নির্বাচন কমিশনার, জুড়ী টি এন খানম সরকারি কলেজ গভর্ণিং বডির সদস্যর দায়িত্ব পালন করেন।
 তিনি দৈনিক আলআমিন পত্রিকার নিজস্ব সংবাদদাতা (কুলাউড়া) ছিলেন। এছাড়া তিনি দৈনিক সমকাল পত্রিকার জুড়ী প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেন।
মৃত্যুকালে তাঁর বয়স ছিল ৬৭ বছর। তিনি স্ত্রী, ১ ছেলে, ১ মেয়েসহ বহু আতœীয় স্বজন রেখে যান। পরদিন রবিবার বেলা ২.১৫ঘটিকায় বিশ্বনাথপুর ঈদগাহ ময়দানে জানাজার নামাজ শেষে ভবানীপুর গোরস্তানে তাঁর লাশ দাফন করা হয়।
মরহুম সাংবাদিক রফিক আহমদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জুড়ী উপজেলা প্রেস ক্লাব আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে। এছাড়া পারিবারিক ভাবে বিভিন্ন কর্মসূচী পালিত হয়।

কমলগঞ্জে ভোক্তা অধিকার অভিযানে জরিমানা আদায়



প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ॥
  মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তরের অভিযানে বিভিন্ন দোকান থেকে নগদ জরিমানা আদায় করা হয়েছে।
জানা যায়, বাণিজ্য মন্ত্রনালয়াধীন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, মৌলভীবাজার জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মোঃ আল-আমিন এর নেতৃত্বে ও কমলগঞ্জ থানা পুলিশের সহযোগিতায় রবিবার  ১৩ জানুয়ারী দুপুরে উপজেলার ভানুগাছবাজারে ভোক্তা অধিকার আইন লঙ্ঘন বিরোধী অভিযানে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে হোটেলে খাদ্য পরিবেশন করা, মূল্য তালিকা না রাখা, কসমেটিক্সের প্যাকেটের গাঁয়ে নিজেরা অতিরিক্ত মূল্য লেখা, যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে লাইসেন্স না নেওয়াসহ  বিভিন্ন অপরাধে রাধুনী  হোটেলকে ৩ হাজার টাকা, ভাই ভাই ষ্টোরকে ৫ শত টাকা, সন্ধানী ডিপার্টমেন্টাল ষ্টোরকে ১ হাজার ৫ শত  টাকা, নিউ পানাহার রেষ্টুরেন্টকে ২ হাজার টাকাসহ মোট ৭ হাজার টাকা জরিমানা আরোপ ও তা আদায় করা হয়।

কুলাউড়ায় ছিনতাইকারীদের কবলে আমেরিকা প্রবাসী আহত

 মিডিয়া ব্যাক্তিত্ব সৈয়দ ইলিয়াস খসরু পরিবার নিয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছেন
  স্টাফরিপোটারঃ
মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় সৈয়দ নাহিদ ইলিয়াস নামে এক আমেরিকা প্রবাসী ছিনতাইয়ের শিকার হয়েছেন। ঘটনাটি গত  ১১ জানুয়ারী শুক্রবার উপজেলার ভাটেরা ইউনিয়নের মাদ্রাসা বাজারের কাছে ঘটে।
থানায় দায়েরকৃত মামলার বিবরন ও স্থানিয় সূত্রে জানা যায় ভাটেরা ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর গ্রামের যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সৈয়দ ইলিয়াস খসরুর ছোট ছেলে সৈয়দ নাহিদ ইলিয়াস ঘটনার দিন বড় ভাইয়ের  বৌভাত অনুষ্টানে তার এক বোনকে নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে কতিপয় ছিনতাইকারীরা তার মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে এবং তার পকেটে থাকা ৭শত ইউএস ডলার, নগদ ৭হাজার টাকা, আনুমানিক ৩হাজার ২শত ইউএস ডলার মূল্যের ৩ভরি ওজনের হোয়াইট গোল্ড চেইন সহ সর্বমোট ৩লক্ষ ৭হাজার ৫শত টাকার মালামাল নিয়ে যায়। এসময় ছিনতাইকারীদের আঘাতে নাহিদ ইলিয়াস মারাতœক আহত হোন। পরে স্থানিয়দের সহযোগিতায় আহতকে উদ্ধার করে কুলাউড়া সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
এ ঘটনার পর থানায় অভিযোগ করার কারনে ঐদিন সন্ধায় বিবাদি পক্ষের লোকজন বদরুল আলম সিদ্দিকি নানুর নেতৃত্বে ভাটেরা বাজারে প্রবাসী সৈয়দ নাহিদ ইলিয়াসের চাচা, পিতা সহ নিকট আতœীয়দের উপরে হামলা চালায় এতে আরো কয়েকজন গুরুতর আহত হোন। পরে তাদেরকে মারাতœক আহত অবস্থায় কুলাউড়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ব্যাপারে কুলাউড়া থানায় ২টি পৃথক মামলা দায়ের করা হয়েছে।
যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক ও মিডিয়া ব্যাক্তিত্ব সৈয়দ ইলিয়াস খসরু জানান ছেলের বিয়ে উপলক্ষে কয়েকদিনের জন্য দেশে এসে উক্ত ঘটনার পর পরিবার নিয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছেন। তিনি সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সহযোগিতা কামনা করেছেন।
কুলাউড়া থানার অফিসার্স ইনচার্জ(ওসি) শামীম মুসা জানান এ ঘটনায় হান্নান সিদ্দিকি নামে একজনকে গ্রেফতার করে মৌলভীবাজার কোর্টে প্রেরন করা হয়েছে

রাজনগরে যুবলীগের সম্মেলন: সভাপতি ময়ূনু, সাধারণ সম্পাদক ফৌজি


মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজারের রাজনগরে উপজেলা যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন শনিবার বিকালে গবিন্দবাটি বাজারে সম্পন্ন হয়। সম্মেলনে বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় ময়ূনু খানকে সভাপতি ও কাউন্সিলারদের ভোটে আব্দুল কাদির ফৌজিকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়েছে।
উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক মো. আব্দুল কাদির ফৌজির সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন, মৌলভীবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য নেছার আহমদ, জেলা আ’লীগের সহ- সভাপতি আকিল আহমদ, সাধারণ সম্পাদক মিছবাহুর রহমান, পৌর মেয়র ফজলুর রহমান, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ ফজলুল হক আতিক, উপজেলা আওয়ামলীগের সভাপতি মিছবাহুদ্দোজা ভেলাই ও ইউপি চেয়ারম্যান মিলন বখত প্রমুখ।
সম্মেলনের উদ্বোধন করেন জেলা যুবলীগরে সভাপতি নাহিদ আহমদ, প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ রেজাউর রহমান সুমন ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আজিজ বদরুল। এছাড়াও উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের বিভিন্ন স্থরের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

1/10/2019

অবশেষে বাদাঘাটে যাচ্ছে সিলেট কারাগার


ডেস্ক রিপোর্ট:: সিলেট নগরের উপকণ্ঠে বাদাঘাটে নবনির্মিত সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে শুক্রবার (১১ জানুয়ারী) থেকে বন্দি স্থানান্তর কার্যক্রম শুরু হবে। প্রথম দফায় শুধুমাত্র সাজাপ্রাপ্ত বন্দিদের এ কারাগারে নিয়ে যাওয়া হবে।
সিলেটের জেলা প্রশাসক কাজী এম এমদাদুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, এর মাধ্যমে সিলেট নগর থেকে ২৩০ বছরের পুরনো কারাগার নগরের উপকণ্ঠ বাদাঘাটে সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার স্থানান্তর প্রক্রিয়া শুরু হবে।
জানা গেছে, শহরতলর বাদাঘাটে নবনির্মিত সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি স্থানান্তরের লক্ষ্যে গত ৬ জানুয়ারি রোববার এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ১১ জানুয়ারি শুক্রবার থেকে নগরের ধোপাদিঘীরপারস্থ পুরাতন কারাগার থেকে বাদাঘাটে নবনির্মিত কারাগারে প্রথম দফায় সাজাপ্রাপ্ত বন্দি স্থানান্তর শুরুর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সভায় নেয়া সিদ্ধান্তের পরই এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয় কারা কর্তৃপক্ষ।
এরই মধ্যে পুরাতন কারাগারের প্রধান ফটকে নোটিশ সাঁটানো হয়। নোটিশে বলা হয়েছে, সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে আটক বন্দিদের সঙ্গে তাদের আত্মীয়-স্বজনসহ সকলের সাক্ষাৎ কার্যক্রম ১০ জানুয়ারি থেকে ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। ওই তারিখ ছাড়া অন্যান্য দিনের সাক্ষাৎ যথানিয়মে চলবে।
shylet
সূত্রমতে, এরই মধ্যে কারারক্ষীসহ কারা কর্মকর্তা-কর্মচারীরা নতুন কারাগারে তাদের কার্যক্রম শুরু করেছেন। বন্দিদের জন্যে পুরোপুরি প্রস্তুত করা হয়েছে নবনির্মিত কেন্দ্রীয় কারাগার। বর্তমানে সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের বন্দির সংখ্যা ২ হাজার ৩০০ জন। এর মধ্যে কয়েদি ৫০০ এবং হাজতি ১ হাজার ৮০০ জন।
সিলেট মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (মিডিয়া) জেদান আল মুসা বলেন, বন্দি স্থানান্তর কার্যক্রম নির্বিঘ্ন করতে ইতোমধ্যে কারাগার সংশ্লিষ্ট এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। মহানগর পুলিশ বন্দি স্থানান্তরে সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে।
shylet
কারাগার সূত্রে জানা যায়, ১৭৮৯ সালে তৎকালীন ব্রিটিশ শাসকের প্রতিনিধি সিলেটের কালেক্টর জন উইলসন সিলেট নগরের ধোপাদীঘির পারে ২৪ দশমিক ৬৭ একর জায়গায় নির্মাণ করেন সিলেট কারাগার। এতে তৎকালীন এক লাখ রুপি ব্যয় হয়েছিল। কারাগার নির্মাণের বছর সিলেট জেলার জনসংখ্যা ছিল ৭৫ হাজার ৩৮২ জন। সময়ের ব্যবধানে জনসংখ্যা বৃদ্ধির পাশাপাশি বন্দির সংখ্যা বাড়তে থাকে। কারাগার নির্মাণের ২২১ বছর পর নগরের বাইরে বাদাঘাট এলাকায় কারাগার স্থানান্তরের উদ্যোগ নেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।
জানা গেছে, সিলেট সদর উপজেলার কান্দিগাঁও ইউনিয়নের বাদাঘাটে নবনির্মিত আধুনিক ও দৃষ্টিনন্দন সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে নির্মাণ করা হয়েছে ৬৪টি ভবন। এসব ভবনের মধ্যে বন্দিদের জন্যে নির্মাণ করা হয় ৭টি ভবন। এর মধ্যে পুরুষ বন্দিদের জন্যে ৪টি ও নারী বন্দিদের জন্যে ৩টি ভবন। পুরুষ বন্দিদের ৪টি ভবনই ছয়তলা বিশিষ্ট এবং নারী বন্দিদের জন্য ভবনগুলোর মধ্যে একটি চারতলা ও দুটি দোতলা ভবন রয়েছে।

১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারী স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করে



আজ প্রায় ৩০ লক্ষ মানুষ কে মেরে ফেলা হয়ে হয়েছে ২য় বিশ্ব যুদ্ধে ১ম বিশ্ব যুদ্ধেও এত মানুষ এত সাধারন জনগণকে মৃত্যু বরণ করে নাই শহীদ হয় নাই যা আমার ৭ কোটির বাংলায় করা হয়েছে। আমি জানতাম না আমি আপনাদের কাছে ফিরে আসবো আমি খালি একটা কথা বলেছিলাম, তোমরা যদি আমাকে মেরে ফেলে দাও কোন আপত্তি নাই মৃত্যুর পরে তোমরা আমার লাশটা আমার বাঙ্গালির কাছে দিয়ে দিও এই একটা অনুরোধ তোমাদের কাছে।

আমি মোবারকবাদ জানাই ভারত বর্ষের প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধী কে,আমি মোবারকবাদ জানাই ভারতবর্ষের জনগণকে আমি মোবারকবাদ জানাই ভারতবর্ষের সামরিক বাহিনীকে,আমি মোবারকবাদ জানাই রাশিয়াকে জনগণকে,আমি মোবারকবাদ জানাই জার্মানি, ব্রিটিশ, ফ্রান্স সব জায়গার জনগণকে তাদের আমি মোবারকবাদ জানাই যারা আমাকে সমর্থন করেছে।

আমি মোবারকবাদ জানাই আমেরিকার জনসাধারণ কে, মোবারকবাদ জানাই সারা বিশ্বের মজলুম জনগণকে যারা আমার এই মুক্ত সংগ্রাম কে সাহায্য করেছে। আমার বলতে হয় ১ কোটি লোক এই বাংলাদেশ থেকে ঘর বাড়ি ছেড়ে ভারতবর্ষে আশ্রয় নিয়েছিলো ভারতের জনসাধারণ মিসেস ইন্দিরা গান্ধী তাদের আশ্রয় দিয়েছেন তাদের আমি মোবারকবাদ না দিয়ে পারি না। যারা অন্যরা সাহায্য করেছেন তাদেরামার মোবারকবাদ দিতে হয়।

তবে মনে রাখা উচিত বাংলাদেশ স্বাধীন রাষ্ট্র।বাংলাদেশ স্বাধীন থাকবে বাংলাদেশকে কেউ দমাতে পারবে না। বাংলাদেশকে নিয়ে ষড়যন্ত্র করে লাভ নাই। আমি যাবার আগে বলেছিলাম ও বাঙালি এবার তোমাদের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম আমি বলেছিলাম ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তোল তোমরা ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তুলে সংগ্রাম করছো আমি আমার সহকর্মীদের মোবারক বাদ জানাই। আমার বহু ভাই বহু কর্মী আমার বহু মা-বোন আজ দুনিয়ায় নাই তাদের আমি দেখবো না।

আমি আজ বাংলার মানুষ কে দেখলাম, বাংলার মাটি কে দেখলাম, বাংলার আকাশ কে দেখলাম বাংলার আবহাওয়া কে অনুভব করলাম। বাংলাকে আমি সালাম জানাই আমার সোনার বাংলা তোমায় আমি বড় ভালোবাসি বোধহয় তার জন্যই আমায় ডেকে নিয়ে এসেছে।

আমি আশা করি দুনিয়ার সব রাষ্ট্রের কাছে আমার আবেদন আমার রাস্তা নাই আমার ঘাট নাই আমার খাবার নাই আমার জনগণ গৃহহারা সর্বহারা,আমার মানুষ পথের ভিখারী। তোমরা আমার মানুষ কে সাহায্য করো মানবতার খাতিরে তোমাদের কাছে আমি সাহায্য চাই। দুনিয়ার সকল রাষ্ট্র এর কাছে আমি সাহায্য চাই। তোমরা আমার বাংলাদেশকে তোমরা রিকোগনাইজ করো। জাতিসংঘের ত্রাণ দাও দিতে হবে, উপায় নাই দিতে হবে। আমি আমরা হার মানবো না আমরা হার মানতে জানি না। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ বলেছিলেন-

"সাত কোটি বাঙ্গালির হে মুগ্ধ জননী রেখেছো বাঙালি করে মানুষ করো নাই"

কবিগুরু আজ মিথ্যা কথা প্রমান হয়ে গিয়েছে। আমার বাঙালি আজ মানুষ।আমার বাঙালি আজ দেখিয়ে দিয়েছে দুনিয়ার ইতিহাসে এত লোক আত্মাহুতি, এত লোক জান দেয় নাই। তাই আমি বলি আমায় দাবায় রাখতে পারবা না।

আজ থেকে আমার অনুরোধ আজ থেকে আমার আদেশ আজ থেকে আমার হুকুম ভাই হিসেবে, নেতা হিসেবে নয় প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নয় প্রেসিডেন্ট হিসেবে নয়। আমি তোমাদের ভাই তোমরা আমার ভাই। এ স্বাধীনতা আমার পূর্ণ হবে না যদি বাংলার মানুষ পেট ভরে ভাত না পায়, এ স্বাধীনতা আমার পূর্ণ হবে না যদি বাংলার মা-বোনেরা কাপড় না পায়, এ স্বাধীনতা আমার পূর্ণ হবে না যদি এদেশের যুবক যারা আছে তারা চাকরি না পায়। মুক্তিবাহিনী, ছাত্র সমাজ তোমাদের মোবারকবাদ জানাই তোমরা গেরিলা হয়েছো তোমরা রক্ত দিয়েছো, রক্ত বৃথা যাবে না, রক্ত বৃথা যায় নাই।

একটা কথা একটা কথা আজ থেকে বাংলায় যেন আর চুরি ডাকাতি না হয়। বাংলায় যেন আর লুটতরাজ না হয়। বাংলায় যারা অন্য লোক আছে অন্য দেশের লোক, পশ্চিম পাকিস্তানের লোক বাংলায় কথা বলে না তাদের বলছি তোমরা বাঙালি হয়ে যাও। আর আমি আমার ভাইদের বলছি তাদের উপর হাত তুলো না আমরা মানুষ ,মানুষ ভালোবাসি।

তবে যারা দালালি করছে যারা আমার লোকদের ঘরে ঢুকে হত্যা করছে তাদের বিচার হবে এবং শাস্তি হবে। তাদের বাংলার স্বাধীন সরকারের হাতে ছেড়ে দেন, একজনকেও ক্ষমা করা হবে না। তবে আমি চাই স্বাধীন দেশে স্বাধীন আদালতে বিচার হয়ে এদের শাস্তি হবে। আমি দেখিয়ে দিতে চাই দুনিয়ার কাছে শান্তিপূর্ণ বাঙালি রক্ত দিতে জানে শান্তিপূর্ণ বাঙালি শান্তি বজায় রাখতেও জানে।

আমায় আপনারা পেয়েছেন আমি আসছি। জানতাম না আমার ফাসির হুকুম হয়ে গেছে আমার সেলের পাশে আমার জন্য কবর খোড়া হয়েছিলো। আমি প্রস্তুত হয়েছিলাম, বলেছিলাম আমি বাঙালি আমি মানুষ, আমি মুসলমান একবার মরে ২ বার মরে না। আমি বলেছিলাম আমার মৃত্যু আসে যদি আমি হাসতে হাসতে যাবো আমার বাঙালি জাত কে অপমান করে যাবো না তোমাদের কাছে ক্ষমা চাইবো না।

এবং যাবার সময় বলে যাবো জয় বাংলা, স্বাধীন বাংলা, বাঙ্গালি আমার জাতি, বাংলা আমার ভাষা, বাংলার মাটি আমার স্থান।

ভাইয়েরা আমার যথেষ্ট কাজ পরে রয়েছে আমার সকল জনগণকে দরকার যেখানে রাস্তা ভেঙে গিয়েছে নিজেরা রাস্তা করতে শুরু করে দাও। আমি চাই জমিতে যাও ধান বুনো, কর্মচারীদের বলি একজন ও ঘুষ খাবেন না। মনে রাখবেন তখন সুযোগ ছিলো না,আমি অপরাধ ক্ষমা করবো না।

ভাইয়েরা আমার যাওয়ার সময় আমাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। তাজউদ্দীন, নজরুলেরা আমাকে ছেড়ে যায়,আমি বলেছিলাম ৭ কোটি বাঙালির সাথে মরতে আমার ডেকো না।আমি আশীর্বাদ করছি ওরা কাঁদছিল আমি বলি তোরা চলে যা আমার আস্তা রইলো আমি এই বাড়িতে মরতে চাই।এটাই হবে বাংলায় জায়গা এখানেই আমি মরতে চাই ওদের কাছে মাথানত করে আমি পারবো না।

ডাঃ কামাল কে নিয়ে ৩ মাস জেরা করছে আমার বিরুদ্ধে সাক্ষী দাও কয়েকজন বাঙালি আমার বিরুদ্ধে সাক্ষী দিয়েছে তাদের আমরা জানি চিনি এবং তাদের বিচার ও হবে। আপনারা বুঝতে পারেন-

"নম নম নম সুন্দরী মম জননী জন্মভুমি গঙ্গার তীর সিন্ধ সুমীর জীবনও জুড়ালে তুমি"

আজ আমি যখন এখানে নামছি আমি আমার চোখের পানি ধরে রাখতে পারি নাই। যে মাটিকে আমি এত ভালোবাসি, যে মানুষ কে আমি এত ভালোবাসি, যে জাত কে আমি এত ভালোবাসি, আমি জানতাম না সে বাংলায় আমি যেতে পারবো কিনা। আজ আমি বাংলায় ফিরে এসেছি বাংলার ভাইয়েদের কাছে, মায়েদের কাছে, বোনদের কাছে। বাংলা আমার স্বাধীন, বাংলাদেশ আজ স্বাধীন।

পশ্চিম পাকিস্তানের ভাইদের বলি তোমরা সুখে থাকো। তোমার সামরিক বাহিনীর লোকেরা যা করেছে আমার মা বোনদের রেপ করেছে, আমার ৩০ লক্ষ লোককে মেরে ফেলে দিয়েছে, যাও সুখে থাকো। তোমাদের সাথে আর না শেষ হয়ে গেছে তোমরা স্বাধীন থাকো, আমিও স্বাধীন থাকি।

তোমাদের সাথে স্বাধীন দেশের নাগরিক হিসেবে বন্ধু হতে পারে তাছাড়া বন্ধু হতে পারেনা। তবে যারা অন্যায় ভাবে অন্যায় করেছে তাদের বিরুদ্ধে যথেষ্ট ব্যবস্থা করা হবে। আপনাদের কাছে আমি ক্ষমা চাই আমি আরেকদিন বক্তৃতা করবো একটু সুস্থ হয়ে লই। আপনারা চেয়ে দেখেন আমি সেই মুজিবর রহমান আর নাই। আমার বাংলার দিকে চেয়ে দেখেন সমান হয়ে গেছে জায়গা, গ্রাম এর পর গ্রাম পুড়ে গেছে এমন কোন পরিবার নাই যার মধ্যে আমার লোককে হত্যা করা হয় নাই।

কতবড় কাপুরুষ যে নিরপরাধ লোক কে এভাবে হত্যা করে এভাবে সামরিক বাহিনীর লোকেরা, আর তারা বলে কি আমরা পাকিস্তানের মুসলমান সামরিক বাহিনী ঘৃণা করা উচিত জানানো উচিত দুনিয়ার মধ্যে ইন্দোনেশিয়ার পরে বাংলাদেশই ২য় মুসলিম দেশ,ভারত ৩য়, পাকিস্তান ৪র্থ।


আমরা মুসলমান, মুসলমান মা বোনদের রেপ করে। আমার রাষ্ট্রে হবে সমাজতন্ত্র ব্যবস্থা। এই বাংলাদেশে হবে গণতন্ত্র এই বাংলাদেশে হবে ধর্ম নিরপেক্ষ রাষ্ট্র। যারা জানতে চান আমি বলে দিবার চাই আসার সময় দিল্লিতে শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধীর সাথে কথা হয়েছে আমি আপনাদের বলতে পারি তাকে জানি আমি তাকে আমি শ্রদ্ধা করি সে পন্ডিত নেহেরুর কন্যা সে মতিলাল নেহেরুর ছেলের মেয়ে। তারা রাজনীতি করেছে ত্যাগ করেছে তারা আজকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী হয়েছে যেদিন আমি বলবো সেদিন ভারতের সৈন্য বাংলার মাটি ছেড়ে চলে যাবে এবং তিনি আস্তে আস্তে কিছু সরিয়ে নিচ্ছেন।

যে সাহায্য তিনি করেছেন আমি আমার ৭ কোটি বাঙালির পক্ষ থেকে তাকে, তার সরকার কে ভারতের জনগণকে শ্রদ্ধা অন্তরের অন্তঃস্থল থেকে মোবারকবাদ জানাই।

ব্যক্তিগতভাবে এমন কোন রাষ্ট্র প্রধান নাই যার কাছে তিনি আপিল করেন নাই শেখ মুজিব কে ছেড়ে দিতে। তিনি নিজে ব্যক্তিগত ভাবে দুনিয়ার সকল রাষ্ট্রে কাছে বলেছেন তোমরা ইয়াইয়া খান কে বল শেখ মুজিব কে ছেড়ে দিতে একটা রাজনৈতিক সমাধান করতে। ১কোটি লোক নিজের মাতৃভূমি ছেড়ে অন্য দেশে চলে গেছে? এমন অনেক দেশ আছে যেখানে লোক সংখ্যা ১০ লাখ, ১৫ লাখ, ২০ লাখ, ৩০ লাখ, ৪০ লাখ, ৫০ লাখ। শতকরা ৬০ ভাগ দেশে লোকসংখ্যা ১ কোটির কম আর আমার বাংলা থেকে ১ কোটি লোক মাতৃভূমির মায়া ত্যাগ করে ভারতে স্থান নিয়েছিলো কত অসুস্থ হয়ে মারা গেছে, কত না খেয়ে কষ্ট পেয়েছে, কত ঘর বাড়ি জ্বালিয়ে দিয়েছে এই পাষাণদের দল।

ক্ষমা করো আমার ভাইয়েরা ক্ষমা করো আজ আমার কারো বিরুদ্ধে প্রতিহিংসা নাই একটা মানুষকে তোমরা কিছু বলো না অন্যায় যে করেছে তাকে সাজা দিবো আইন নিজের হাতে তুলে নিও না। মুক্তিবাহিনীর ছেলেরা তোমরা আমার সালাম গ্রহন করো, ছাত্রসমাজ তোমরা আমার সালাম গ্রহন করো, শ্রমিকসমাজ তোমরা আমার সালাম গ্রহন করো, বাংলার হতভাগ্য হিন্দু-মুসলমান আমার সালাম গ্রহন করো।

আর আমার কর্মচারী পুলিশ, ইপিআর যাদের উপর মেশিনগান চালিয়ে দেয়া হয়েছে, যারা মা বোন ত্যাগ করে পালিয়ে গিয়েছে তার স্ত্রীদের ধরে কুর্মিটোলা নিয়ে যাওয়া হয়েছে তোমাদের আমি সালাম জানাই, তোমাদেরকে আমি শ্রদ্ধা জানাই।

নতুন করে গড়ে উঠবে এই বাংলা,বাংলার মানুষ হাসবে বাংলার মানুষ খেলবে বাংলার মানুষ মুক্ত হয়ে বাস করবে বাংলার মানুষ পেট ভরে ভাত খাবে এই আমার সাধনা এই আমার জীবনের কাম্য আমি যেন এই কথা চিন্তা করেই মরতে পারি এই আশীর্বাদ এই দোয়া আপনার আমাকে করবেন। এই কথা বলে আপনাদের কাছে থেকে বিদায় নিবার চাই। আমার সহকর্মী দের আমি ধন্যবাদ জানাই যাদের আমি যে কথা বলে গিয়েছিলাম তারা সকলে একজন একজন করে প্রমাণ করে দিয়ে গেছে মুজিব ভাই বলে গিয়েছে তোমরা সংগ্রাম করো, তোমরা স্বাধীন করো, তোমরা জান দাও বাংলার মানুষ কে মুক্ত করো।

আমার কথা চিন্তা করো না আমি চললাম যদি ফিরে আসি আমি জানি আমি ফিরে আসতে পারবো না আজ আল্লাহ আছে তাইআজ আমি আপনাদের কাছে ফিরে এসেছি। তোমাদের আমি মোবারকবাদ জানাই আমি জানি কি কষ্ট তোমরা করছো। আমি কারাগারে ছিলাম ৯ মাস আমাকে কাগজ দেয়া হয় নাই। এ কথা সত্য আসার সময় ভুট্টো আমায় বললেন শেখ সাব দেখেন ২ অংশের কোন একটা বাঁধন রাখা যায় নাকি আমি বললাম আমি বলতে পারি না আমি বলতে পারবো না আমি কোথায় আছি বলেত পারি না আমি বাংলায় গিয়ে বলবো আজ বলছি ভুট্টো সাহেব সুখে থাকো বাঁধন ছিঁড়ে গেছে আর না। তুমি যদি কোন বিশেষ শক্তির সাথে গোপন করে আমার বাংলার স্বাধীনতা হরণ করতে চাও মনে রেখ দলের নেতৃত্ব দিবে শেখ মুজিবুর রহমান মরে যাব স্বাধীনতা হারাতে দিবো না।

ভাইয়েরা আমার, আমার ৪ লক্ষ বাঙালি আছে পাকিস্তানে আমি অনুরোধ করবো তবে একটা জিনিস আমি বলতে চাই ইন্টারন্যাশনাল ফোরামে জাতিসংঘের মাধ্যমে অথবা ওয়ার্ল্ড জুরির পক্ষ থেকে ১টা ইনকোয়ারি হতে হবে কি পাশবিক অত্যাচার কিভাবে হত্যা করা হয়েছে আমার লোকেদের এ সত্য দুনিয়ার মানুষকে জানতে হবে। আমি দাবী করবো বাংলাদেশ জাতিসংঘ কে বাংলাদেশ কে আসন দাও এবং ইনকোয়ারি করো। ভাইয়েরা আমার যদি কেউ চেষ্টা করেন ভুল করবেন আমি জানি ষড়যন্ত্র শেষ হয় নাই সাবধান বাঙালিরা ষড়যন্ত্র শেষ হয় নাই।

একদিন বলেছিলাম ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তুলো,একদিন বলেছিলাম যার যা কিছু আছে তা নিয়ে যুদ্ধ করো,বলেছিলাম এ সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম এ জায়গায় ৭ মার্চ। আজ বলছি তোমরা ঠিক থাকো একতাবদ্ধ থাকো,কারো কথা শুনো না।

ইনশাল্লাহ স্বাধীন যখন হয়েছি স্বাধীন থাকবো একজন মানুষ এই বাংলাদেশে বেঁচে থাকতে এই সংগ্রাম চলবে। আজ আমি আর বক্তৃতা করতে পারছি না একটু সুস্থ হলে আবার বক্তৃতা করবো। আপনারা আমাকে মাফ করে দেন আপনারা আমাকে দোয়া করেন আপনারা আমার সাথে সকলে একটা মুনাজাত করেন।
---
সমস্ত মাঠ জুড়ে মানুষ মুনাজাত করছেন। অসংখ্য সাংবাদিক দেশি বিদেশি সাংবাদিক তাদের ক্যামেরা নিয়ে ব্যস্ত।

 বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন



স্টাফ রিপোর্টার॥ মৌলভীবাজারে নানা আয়োজনে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন করেছে জেলা আওয়ামীলীগ। এ উপলক্ষে এক আলোচনা সভা মৌলভীবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি নেছার আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।
বৃহস্পতিবার ১০ জানুয়ারি দূপুরে পৌর মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও প্রবীণ রাজনীতিবিদ বীর মুক্তিযোদ্ধ আজিজুর রহমান। জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মিছবাহুর রহমানের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন পৌর মেয়র মোঃ ফজলুর রহমান, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মুহিবুর রহমান তরফদার, সাংগঠনিক সম্পাদক রাধাপদ দেব সজল, জেলা যুবলীগের সভাপতি নাহিদ সহ যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। এর আগে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ।

1/09/2019

৩০ জানুয়ারি সংসদ অধিবেশন শুরু


ডেস্কঃআগামী ৩০ জানুয়ারি শুরু হচ্ছে একাদশ সংসদের প্রথম অধিবেশন। ওই দিন বিকাল ৩টায় যাত্রা শুরু করবে নতুন এই সংসদ।
রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বুধবার সংসদের এই অধিবেশন আহ্বান করেন বলে সংসদ সচিবালয় থেকে জানানো হয়েছে।
গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয় পায় আওয়ামী লীগ। ভোট হওয়া ২৯৮ আসনের মধ্যে ২৫৭টিতে জয় পেয়েছে দলটি, জোটগতভাবে তারা পেয়েছে ২৮৮ আসন।  অপরদিকে তাদের প্রধান প্রতিপক্ষ বিএনপি ও তাদের জোটসঙ্গীরা সব মিলিয়ে মাত্র সাতটি আসন পেয়েছে।
আওয়ামী লীগ ও তাদের জোটসঙ্গী দলগুলোর নির্বাচিতরা গত ৩ জানুয়ারি সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নেন। নিয়ম অনুযায়ী সংসদ সদস্যরা শপথ নেওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে প্রথম অধিবেশন বসার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।
ক্ষমতাসীন দলের সংসদ নেতা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গত সোমবার শপথ নিয়েছেন নতুন সরকারের মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীরা।
এদিকে জালিয়াতির অভিযোগ তুলে নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করা বিএনপি জোটের নেতারা সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ না নেবেন না বলে জানানো হয়েছে।
গতবারের মতো এবারও সংসদে বিরোধী দলের আসনে ব্সতে যাচ্ছে জাতীয় পার্টি। তবে গত সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদের চেয়ারে বসছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ।
বিরোধী দলীয় উপনেতার দায়িত্বে থাকবেন এরশাদের ভাই জিএম কাদের। আর বিরোধী দলীয় প্রধান হুইপের দায়িত্ব যাচ্ছে মশিউর রহমান রাঙ্গাঁর কাছে।
গতবার বিরোধী দলের পাশাপাশি সরকারের মন্ত্রিসভায়ও ছিল জাতীয় পার্টি। তবে এবার জাতীয় পার্টি বা আওয়ামী লীগের অন্য শরিকদের কেউই এখন পর্যন্ত সরকারে নেই।
আগামী ২৮ জানুয়ারি শেষ হচ্ছে দশম জাতীয় সংসদের মেয়াদ।
নিয়ম অনুযায়ী নতুন সংসদের প্রথম অধিবেশনের শুরুর দিন ভাষণ দেবেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। পরে অধিবেশনজুড়ে ওই ভাষণের ওপর আলোচনা করবেন সংসদ সদস্যরা।
অধিবেশন শুরুর পর প্রথমেই হবে স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকার নির্বাচন। স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীকে আবারও একই পদে রাখার বিষয়ে রংপুরে নির্বাচনী জনসভায় ইঙ্গিত দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
তবে ডেপুটি স্পিকার কে হবেন, সে বিষয়ে এখনও ক্ষমতাসীনদের কাছ থেকে কোনো ইঙ্গিত পাওয়া যায়নি।
সংসদ সচিবালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, স্পিকার-ডেপুটি স্পিকার নির্বাচনের পর অধিবেশন কিছু সময় মুলতুবি রাখা হবে।
এই সময় সংসদে অবস্থানরত রাষ্ট্রপতির কাছ থেকে নতুন স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকার শপথ নেবেন। পরে নবনির্বাচিত স্পিকারের সভাপতিত্বে শুরু হবে সংসদের বৈঠক।
বৈঠক শুরুর পর নতুন স্পিকার সংসদে শোক প্রস্তাব উত্থাপন করবেন। তবে তার অধ্যাদেশ সংসদে তুলবেন আইনমন্ত্রী।
একাদশ সংসদের নির্বাচিত সদস্য আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামসহ অন্যদের মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব তোলা হবে।
বর্তমান সংসদের কোনো সদস্য মারা গেলে শোক প্রস্তাবের আলোচনা শেষে অধিবেশন মুলতুবির রেওয়াজ আছে।
তবে রাষ্ট্রপতির ভাষণের সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কারণে কিছু সময়ের জন্য অধিবেশন মুলতুবি রাখা হবে। এরপর আবার সংসদের বৈঠক শুরু হলে স্পিকার রাষ্ট্রপতিকে ভাষণ দেওয়ার জন্য আহ্বান জানাবেন।
রাষ্ট্রপতির ভাষণের পর অধিবেশন রেওয়াজ অনুযায়ী মুলতবি করা হবে।